২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ


দীর্ঘদিন একই প্রতিষ্ঠানে থাকা ৩০ কর্মকর্তাকে বদলি

ডেস্ক রিপোর্ট>>শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের ৩০ কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ঘুষ-দুর্নীতি, চাকরিবিধি লঙ্ঘনসহ একই প্রতিষ্ঠানে বহু বছর ধরে কর্মরত থাকার অভিযোগ রয়েছে। এ কারণে মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এই কর্মকর্তাদের বদলির নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। তবে এখনও মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে নির্দেশনাটি প্রকাশ করা হয়নি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানান গেছে।

এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব চৌধুরী মুফাদ আহমেদ বলেন, ‘অনেক কর্মকর্তা দীর্ঘদিন একই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত থাকায় তাদের বিরুদ্ধে ঘুষ, দুর্নীতির নানান অভিযোগ উঠেছে। এ কারণে তাদের বদলি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তার আলোকে মঙ্গলবার তালিকাভুক্ত কর্মকর্তাদের বদলির নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। বদলির প্রক্রিয়ায় আরও প্রায় ২০ জন কর্মকর্তা রয়েছেন। পর্যায়ক্রমে তাদেরও বদলির নির্দেশনা জারি করা হতে পারে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, বদলি হওয়া কর্মকর্তাদের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মাধ্যমিক শাখার উপ-পরিচালক মোস্তফা কামাল, বেসরকারি কলেজ শাখার উপ-পরিচালক মেজবাহ উদ্দিন, এস এম কামাল হায়দারসহ ১২ জন রয়েছেন। এছাড়া ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের দুজন কর্মকর্তা, এনসিটিবির চারজনসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ১২জন কর্মকর্তা রয়েছেন।

অভিযোগ রয়েছে, এসব কর্মকর্তার মূল পদ সরকারি কলেজগুলোতে হলেও প্রভাব খাটিয়ে তারা বছরের পর বছর প্রশাসনিক পদ আঁকড়ে ছিলেন। অনেকেই গড়ে তুলেন বাণিজ্য সিন্ডিকেট।

একইভাবে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার, কলেজ পরিদর্শক ড. মো. আশফাকুস সালেহীন, বিদ্যালয় পরিদর্শক এটিএম মইনুল হোসেনসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। এনসিটিবির উৎপাদন নিয়ন্ত্রক আবদুল মজিদ, মোখলেছুর রহমান, মোছাব্বির হোসেন, মনির হোসেনসহ অন্তত ২০ জনের বিরুদ্ধেও অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া ডিআইএর সিদ্দিকুর রহমান, কাউছার হোসেন, এনামুল হকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ উঠেছে। শিগগিরই এসব কর্মকর্তাদেরও বদলি করা হতে পারে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, এনসিটিবিতে প্রতি বছর হাজার কোটি টাকার বই ছাপার কাজে কমিশন হাতিয়ে রাতারাতি সম্পদের পাহাড় গড়েছেন অনেক কর্মকর্তা। বোর্ডে তারা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অনুমতি, কেন্দ্র স্থাপন, কেনাকাটায় বড় ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। ডিআইএ কর্মকর্তারা বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিদর্শনের নামে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেন। সম্প্রতি একজন কর্মকর্তা ঘুষসহ দুদকের অভিযানে আটক হন। মাউশির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে এমপিওভুক্তিসহ বিভিন্ন কেনাকাটায় দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। এসব অনৈতিক সুবিধা নিতেই বছরের পর বছর সেখানে ‘খুঁটি’ গেড়েছেন অনেক কর্মকর্তা।