১৯শে এপ্রিল, ২০২১ ইং, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ


১৪ মার্চ বেসরকারি শিক্ষকদের মহাসমাবেশের ডাক

ডেস্ক রিপোর্ট>> জাতীয়করণসহ ১১ দফা দাবিতে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা আবারও আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন। আগামী ১৪ মার্চ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শিক্ষক-কর্মচারীদের মহাসমাবেশে যোগ দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। ‘শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটি’ এ আন্দোলনের ডাক দিয়েছে।

গত শনিবার থেকে সারা দেশে সংগ্রাম কমিটির ডাকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট চলছে। একই দাবিতে সোম ও মঙ্গলবার সব জেলায় শিক্ষক-কর্মচারীরা সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করবেন। এ সময়ের মধ্যে সরকারের তরফ থেকে কোনো ইতিবাচক ঘোষণা না আসলে ১৪ মার্চ মহাসমাবেশের ডাক দেয়া হয়েছে।

শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির সমন্বয়কারী অধ্যক্ষ আসাদুল হক বলেন, আমরা মহাসমাবেশ পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যে কোনো মূল্যে এ কর্মসূচি পালিত হবে। জাতীয়করণের দাবিতে শিক্ষক মহাসমাবেশ (১৪ মার্চ ) সফল করতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় অব্যাহত রেখেছি। গত শুক্রবার আমরা একাধিক বৈঠক করেছি। বৈঠকে শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির একাধিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রাম কমিটির ব্যানারে জাতীয়করণসহ ১১ দফা দাবিতে গত ২৭ জানুয়ারি থেকে টানা তিনদিনের ক্লাস বর্জন কর্মসূচির পাশাপাশি শিক্ষক নেতারা দাবি আদায়ের পক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

অধ্যক্ষ আসাদুল হক বলেন, আশা করেছিলাম বর্তমান শিক্ষাবান্ধব সরকার ১১ দফা দাবির যৌক্তিকতা উপলব্ধি করে সংগ্রাম কমিটির সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নেবে। ন্যায়সঙ্গত দাবি পূরণে পদক্ষেপ নেবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এ কারণে আবারও সারা দেশের শিক্ষক-কর্মচারীরা এক হয়ে মহাসমাবেশ পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শিক্ষক-কর্মচারীর ১১ দাবির মধ্যে রয়েছে- শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ করা, সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের মত বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের ৫ শতাংশ বার্ষিক বেতন প্রবৃদ্ধি, পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা, বাংলা নববর্ষ ভাতা, বাড়ি-ভাড়া ও চিকিৎসা ভাতা প্রদান করা, অনুপাত প্রথা বিলুপ্ত করে সহকারী অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপক পদে পদোন্নতি, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রদান ও সহকারী প্রধান শিক্ষকের বেতন স্কেল সরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও সহকারী প্রধানের অনুরূপকরণ ও শিক্ষক-কর্মচাারীদের পূর্বের ন্যায় টাইম স্কেল প্রদান, শিক্ষক-কর্মচারীদের অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টের মাধ্যমে প্রদান করা, ননএমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং অনার্স ও মাস্টার্স কোর্সে পাঠদানকারী শিক্ষকসহ বিধিমোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওভুক্ত করা, ইউনেস্কোর সুপারিশ অনুযায়ী শিক্ষাখাতে জিডিপি’র ৬ শতাংশ এবং জাতীয় বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ রাখাসহ বিভিন্ন দাবি করা হয়েছে।